Subscribe Us

রবীন্দ্রোত্তর কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত

রবীন্দ্রোত্তর কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত  (১৯০১ - ১৯৬০) :




জন্ম - ৩০শে অক্টোবর ১৯০১ খ্রিষ্টাব্দে কলকাতার হাতিবাগান অঞ্চলে

পিতা - হীরেন্দ্রনাথ দত্ত 

মাতা - ইন্দুমতী বসু মল্লিক, রাজা সুবোধচন্দ্র বসু মল্লিকের ভগিনী

পত্নী - ১ম - ছবি বসু, ২য় - রাজশ্বরী বাসুদেব প্রখ্যাত রবীন্দ্র সংগীত গায়িকা ছিলেন।

মৃত্যু - ২৫শে জুন ১৯৬০।


  • তাঁর প্রথম প্রকাশিত কবিতা “কুক্কুট” ‘প্রবাসী’ পত্রিকায় ১৯২৮ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত। কবিতাটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্নেহ ও প্রশংসা কুড়িয়েছিল।
  • তাঁর শ্রেষ্ঠ প্রেম কাব্য “অর্কেষ্ট্রা”(১৯৩৫)-য় ২৫ টি কবিতা বর্তমান। এই কাব্যগ্রন্থের সর্বাপেক্ষা স্মরণীয় কবিতা “শাশ্বতী”
  • “উপস্থাপন” কবিতায় কবি নিজেকে ‘ক্ষণবাদী’ বলে ঘোষণা করেছেন।
  • কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্তকে বাংলা কবিতায় ‘ধ্রুপদী রীতির প্রবর্তক’ বলা হয়।
  • শঙ্খ ঘোষ তাঁর “ছন্দের বারান্দা” গ্রন্থে বলেছেন, সুধীন্দ্রনাথ দত্তের মৌলিক কবিতার সংখ্যা ১৩০।

সুধীন্দ্রনাথ দত্ত রচিত কাব্যগ্রন্থ :

১. তন্বী ১৯৩০

২. অর্কেস্ট্রা ১৯৩৫

৩. ক্রন্দসী ১৯৩৭

৪. উত্তর ফাল্গুনী ১৯৪০

৫. প্রতিধ্বনি ১৯৫৪ (অনুবাদ গ্রন্থ)

৬. সংবর্ত ১৯৫৬

৭. দশমী ১৯৫৬


সুধীন্দ্রনাথ দত্ত রচিত গদ্যপ্রবন্ধ :

১. স্বগত ১৯৩৮

২. কুলায় ও কালপুরুষ ১৯৫৭

৩. আত্মজীবনীর খসড়া


তন্বী (১৯৩০): 

কাব্যগ্রন্থটি কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত উৎসর্গ করেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শ্রীচরণে। তিনি লেখেন - ঋণ শোধের জন্য নয়, ঋণ স্বীকারের জন্য। 
এ ঋণ সুধীন্দ্রনাথের কবি চৈতন্যের উৎসারণের সঙ্গে সম্পৃক্ত। এ কাব্যের অধিকাংশ কবিতাই প্রেমের গ্লানি ও বিষণ্নতাক্লিষ্ট। তাঁর দুঃখবাদী, ক্ষণবাদী চেতনা অস্ফুটে স্তিমিত হয়ে আছে ‘বর্ষার দিনে’, ‘পলাতকা’ প্রভৃতি কবিতায়।
কাব্যগ্রন্থথটিতে মোট ২৯ টি কবিতা বর্তমান।


ক্রন্দসী (১৯৩৭):

কাব্যটি কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত তাঁর প্রিয় বন্ধু হমফ্রে হাউস কে উৎসর্গ করেন। কাব্যটি তে সর্বমোট ২৪ টি কবিতা বর্তমান এবং সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় কবিতা - ‘উটপাখি’
‘অর্কেস্ট্রা’র ভূমিকায় কবি বলেছেন, ‘ব্যক্তিগত মণীষার জাতীয় মানস ফুটিয়ে তোলাই কবিজীবনের পরম সার্থকতা।’ তাই তাঁর নিঃসঙ্গ নায়কের আর্তনাদের মধ্যে বিশ্বব্যাপী রৌরবের আর্তনাদ শুনতে পাই। ক্ষণিকের অচরিতার্থ প্রেম স্থায়ী হবে না জেনেও ভালবাসাকেই শরীরী মুদ্রায় ধারণ করার প্রাণপণ প্রয়াস চালিয়েছেন।


প্রতিধ্বনি (১৯৫৪):

“প্রতিধ্বনি” পঞ্চান্নটি অনুবাদ কবিতার সংকলন। ইংরেজি, ফরাসি ও জার্মান – এই তিন ভাষায় লেখা এগারোজন কবির অনুবাদে সমৃদ্ধ এই কাব্যগ্রন্থ।


সংবর্ত (১৯৫৬):

কাব্যগ্রন্থটি দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পটভূমিকায় রচিত এবং এই কাব্যগ্রন্থের ‘যাযতি’ কবিতায় পুরাণ প্রসঙ্গের সার্থক প্রয়োগ লক্ষ্য করা যায়।

কবি সুধীন্দ্রনাথ দত্ত সম্পর্কে জীবনানন্দ দাশ বলেছেন - তিনি আধুনিক বাংলা কাব্যের সবচেয়ে বেশি নিরাশাকরোজ্জ্বল চেতনা

Post a Comment

1 Comments